♥বউ♥ পর্ব:৫ writer: অন্না !


শুভ রুমে গিয়ে হা হয়ে গেলো,,,,,,,,,,
,
পুরো রুমে ক্যান্ডেল জ্বালানো,আর ওর সামনে দাড়িয়ে তিশা, মনে হয় মাত্রই সাওয়ার নিয়ে এসেছে,,চুল থেকে টুপ টুপ করে পানি পরে মুখ বেয়ে গলার নিচে নেমে পরছে,,,, পৃথীবির সবচেয়ে সুন্দর অপরুপ রমনী শুভর সামনে দাড়িয়ে আছে,,,শুভ তিশার দিকে অপলোক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে,,,,,শুভ চোখ নামিয়ে নিলেও বেহায়া চোখ আবার তিশাকে দেখতে ব্যস্ত হয়ে পরলো,,,,,তিশা গুটিগুটি পায়ে শুভর কাছে এসে শুভর হাত থেকে ব্যাগ টা নিয়ে টেবিলের ওপর রেখে দিয়ে আবার শুভর সামনে এসে দাড়ায়,,,, আস্তে আস্তে শুভর অনেকটা কাছে চলে আসে,,,,,,, শুভর সাথে নিজের শরীর টা লেপ্টে দাড়িয়ে শুভর হাত দুটো টেনে নিজের কোমড়ে লাগিয়ে দিয়ে একহাতে শুভর গলা জরীয়ে ধরে অন্যহাতে শুভর টাই খুলতে শুরু করে,,,,,,
,
শুভর কোনো হুস নাই,,ও তিশার রুপে হারিয়ে গিয়েছে,,,তিশা যে ওর এতো কাছে সেটা ওর হুসই নাই,,,,,
,
তিশা:::: সারাদিন কই ছিলে তুমি? একটা ফোন ও তো দিতে পারতে,, জানো কতোটা মিস করেছি তোমায়?
,
শুভ:::……
,
তিশা শুভর চাহনি দেখে হঠাৎই শুভকে দুহাতে জরীয়ে ধরে শুভর ঠোটে নিজের ঠোট ডুবিয়ে দেয়,,,,
,
শুভর এতক্ষনে হুস হয় ও কি করছে,,,,আচমকাই তিশার কোমড় থেকে হাত সরীয়ে তিশাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়,,,
,
তিশা ধপ করে ফ্লোরে পরে যায়,,,,,
,
তিশা:::: আউচ্,,,,,,,,,
,
শুভ::::: বারন করেছিলাম না আপনাকে আমার কাছে আসবেন না,,আমার কাছে আসলে এটাই হবে,,,,
,
শুভ ওয়াসরুমে চলে গেলো,,,,,,,
,,
,শুভ:::::(ছি,ছি কি করলাম আমি,আমি তো ওকে আঘাত করতে চাই নি,,,আমি মনে হয় বেশি বেশি করে ফেলেছি,,,, বাচ্চা মেয়ে,ও কেনো বুঝছে না আমি ইরা কে ভালোবাসি,,,ওর জন্য আমার মনে কোনো জায়গা নেই,আর কোনোদিন হবেও না,,ও,,, যদি আবার বাবাকে বলে দেয়,, তাহলে তো আমি শেষ,,,)

শুভ তারাতারি ওয়াসরুম থেকে বের হয়ে দেখে তিশা রুমের ছোট্ট টেবিলে খাবার সাজাচ্ছে,,,,,তিশা শুভর দিকে তাকিয়ে ছোট্ট করে হেসে ওঠে,,,,
,
তিশা:::: তারাতারি এসে খেয়ে নাও,,,খাবার ঠান্ডা হয়ে যাবে,,,,
,
শুভ::::::(তিশাকে দেখে বেশ অবাকই হয়,, একটু আগের ঘটনার পরে যে কোনো মেয়েই কেদে ভাষাতো,,,আর ও হাসি মুখে খাবার সাজিয়ে দিচ্ছে,,,,ওর মনে অন্য কোনো প্ল্যান নাই তো,,,কে যানে,,,যে মেয়ে রে বাবা,,,,, কে যানে ছোট্ট মাথায় কি ঘুরছে,,,,)
,
শুভ:::: আমার খুদা নাই। ,,,
,
তিশা::::: আব্বুকে ডাকবো?
,
শুভ:::: এই না না আমি খাবো তো( অসহ্য মেয়ে একটা)
,
শুভ সোফায় বসে খেতে শুরু করলো,,,আর তিশা চুপচাপ বেলকুনিতে চলে গেলো,,,,শুভ একবার তিশাকে খাবার কথা বললো ও না,,, তিশা একটু পরে হুট করে এসে শুভর কোলে বসে পরে,,,,,
,
শুভ:::: what the he’ll,,,,, এভাবে আমার কোলে,,,,
,
তিশা:::: খুদা লাগছে তো আমার,,,,,
,
শুভ:::: খুদা লাগছে খেয়ে নিন,,হাত তো আছে নাকি? নাকি সেটা বাপের বাড়ি রেখে আসছেন?
,
তিশা;:::: তুমি খাইয়ে দাও না প্লিজ,,,,
,
শুভ::::: no way,,,,,,নামো আমার কোল থেকে,,,,,,নামো বলছি,,,,,
,
তিশা::::: না নামবো না,,,,,, বেশি জোর করলে কিন্তুু আপনারই লস হবে,,,,,
,
শুভ:::: আমার যা হয় হবে,,,তুমি নামো বলছি,,,লজ্জা করেনা এভাবে কোনো পুরুষের গায়ে ঢলে পরতে? নাকি পুরাতন অভ্যাস আছে,,,,,
,
তিশা কিছু না বলে শুভর কোল থেকে নেমে পরে,,,,,সোজা রুম থেকে বের হয়ে যায়,,,,,,,,
,
শুভ:::: অসহ্য মেয়ে,,,,দুদিন হলো বিয়ে করেছি,এমন ভাব করছে যেনো ৫০ বছরের সংসার,,,, হুহ্
,
এর মধ্যে কেউ শুভর কান টেনে ধরেছে,,,,,,
,
শুভ তাকিয়ে দেখে ওর বাবা,,,,
,
শুভ::::: আব্বু,,,,,তুমি,,,,,ছারো লাগছে তো,,,,
,
শুভর বাবা:::: হারামজাদা,,,,,,,কি বলেছিস আমার মামুনি কে হ্যা,,,,
,
শুভ::::: আমি আবার কি বলেছি,,,,,,,,কিচ্ছু বলিনি,,,,
,
তিশা::::: আব্বু,,,,,তোমার ছেলে মিথ্যা কথা বলছে,,আমি খাইয়ে দিতে বলেছি আর আমায় বলেছে আমি নাকি বেশি বেশি খাই,,,তাই আমাকে খাইয়ে দিবে না,,,,,,,,,,
,
শুভ::::: আল্লাহ্,,,,,,,,,সব মিথ্যা কথা আব্বু,,,,আমি,,,,,
,
শুভর বাবা::::: কি,,,,,এত্ত বড় কথা,,,,,ওই হারামজাদা তোর এতো বড় সাহস তুই আমার বউমাকে বলিস ও বেশি খায়,,,,,
,
শুভ::::: বিশ্বাস করো আব্বু,,,,,
,
তিশা:::: এ্যা,,,,,,,,আমায় আরও বলেছে এসব কথা যদি তোমাদের বলি তাহলে আমাকে বাসা থেকে বের করে দেবে,,,,
,
শুভ;::::: আল্লাহ্ গো,,,,,এত্ত বড় মিথ্যা অপবাদ আমার মতো অবলাকে আপনি দিতে পারলেন? ইচ্ছে করছে ঠাস্ করে একটা থাপ্পর মেরে দিতে,,,,
,
শুভর বাবা;::” একটা চড় মেরে তোমার দাতঁ কপাটি ফেলে দিবো আমি ছাগল কোথাকার,,,, কটা টাকা রোজগার করো জন্য নিজেকে কি ভাবো হে,,,, বাড়ির গরম দেখাও আমার বউমারে,,,,,
,
শুভ::::: আব্বু,,,,,আমি এসব কোনো কথা বলিনি,,,,
,
তিশা:::: আব্বু,,,,ও মিথ্যা বলছে,,,,
,
শুভ::::: ভালো কথা শুধু আমার বউমা কেনো আমি,তোর মা,আশা সবাই চলে যাবো এ বাড়ি থেকে,,,,তুই থাক তোর বাড়ি নিয়ে,,,,,,
,
শুভ::::: আব্বু,,,, আব্বু,,,,আমার ভুল হয়ে গেছে,,,আমি আর কখনই তোমার বউমাকে কিচ্ছু বলবোনা,,,,,প্লিজ আমাকে লাস্ট বার এর মতো মাফ করে দাও,,,,,
,
শুভর বাবা:::: ঠিক আছে ঠিক আছে,,,,,বউমার কাছে মাফ চা,,ও যদি তোকে মাফ করে তাহলেই ক্ষমা পাবি,,,,,
,
শুভ;::: ঠিক আছে,,,আমি তোমার বউমার কাছেই মাফ চাচ্ছি,,,,, ( তিশার দিকে এগিয়ে)বউমা,,,,,sorry sorry,,,,তিশা,,,, আমাকে মাফ করে দাও প্লিজ আমি আর কখনই তোমাকে এসব কথা বলবো না( দাঁতে দাতঁ চিপে)
,
তিশা:::: ঠিক আছে তাহলে খাইয়ে দিবেন বলুন,,,,,
,
শুভ::::: ঠিক আছে,,,,দিবো,,,আপনি আব্বুকে বলেন আপনি আমায় মাফ করে দিয়েছেন,,,,,
,
তিশা:::: ঠিক আছে,,,যান মাফ করলাম,,,,,আব্বু,,,,,
,
শুভর বাবা’ :::: হ্যা মামুনি,,,,,
,
তিশা::::( চুপিচুপি) thank you,,,,আমার সাথে মিথ্যা নাটক করার জন্য,,,
,
শুভর বাবা:::: আরে না ন্,,,ছাগল টাকে পিটাতে আমার ভালোই লাগে,,,,,
,
তিশা:::: হিহিহিহিহি
,
শুভর বাবা:::: আচ্ছা আমি গেলাম,,,,
,
তিশা;:::: ওকে,,,,
,
শুভ::::: আপনি আব্বুকে ডেকে আনলেন কেনো?
,
তিশা;:::: আপনাকে বকা খাওয়ানোর জন্য,,,
,
শুভ:::::: কি দিয়ে কিনেছেন আমার বাবা,মা কে হ্যা?
,
তিশা:::: ভালোবাসা দিয়ে মাই লাভ,,,,,,,
,
শুভ:::: ভদ্র ভাবে কথা বলুন,,,,,
,
তিশা::::: কি ভাবে কথা বলবো জান,,,,,
,
শুভ:::: আপনি একটা,,,,
,
তিশা::::: তোমার বউ,,,,,,,
,
শুভ::::: উফ্,,,,,, খেয়ে নিন আসেন,,,,নয়তো আবার
,
তিশা::::: খাবো না আমি,,,,,
,
শুভ;:::: কেনো?
,
তিশা:::::: এমনি,,,,,,,
,
বলেই তিশা বিছানার একপাশে শুয়ে পরে,,,,আসলে তিশা যতই হাসি মুখে থাকুক,,,কিন্তুু শুভর প্রতিটি কথা তিশাকে হার্ড করে,,,,,,কিন্তুু তিশা কিছু বলে না,,,কারন ও বিয়েটা মন থেকে মেনেছে,,,,তাই বিয়েটা বাচানোর চেষ্টা করছে,,,,,,তিশা চাইলেই শুভ কে ছেরে দিয়ে কোটিপতি ঘরের কাউকে বিয়ে করতে,,,,কারন তার ভাই তাকে পাগলের মতো ভালোবাসে,,,, শুভর মা,বাবার ভালোবাসা দেখেই শুভর সাথে তিশার বিয়ে দিয়েছে,,,, তিশা ও ভাইয়ের কথা ফেলে নি,,,কারন ও চেয়েছিলো যাকে বিয়ে করবে জীবনের সমস্ত ভালোবাসা নিংরে তারে ভালোবাসায় ভরিয়ে দিবে,,,কিন্তুুু শুভর মনে তো তিশার কোনো যায়গা নেই,,,আর ভবিৎষতেও জায়গা করে নিতে পারবে কি না,সেটা ওর জানা নেই,, তবে সমস্ত চেষ্টা চালিয়ে যাবে তিশা শুভকে নিজের করে নেবার,,,,
,
,শুভ সোফায় ঘুমিয়ে পরে,,,,
,
মাঝরাতে শুভর ঘুম ভেঙে দেখে আজকেও তিশা ওর বুকের ওপর গুটিশুটি মেরে শুয়ে আছে,,,,,শুভ তিশাকে সরিয়ে দিতে গিয়েও দিলো না,,,,,,,
,
শুভ:::::( এই মেয়েটা পাগল নাকি,,,,,,এভাবে কে এসে বুকের ওপর শুয়ে থাকে,,,,,আবার টি শার্ট টা এমন করে খামচে ধরে আছে আমার বুকে ওর নখের আচর লেগে গেছে,,কবে যে আমি এর থেকে মুক্তি পাবো,,আল্লাই জানে,,,,ইরা একবার ভুল বুঝে আমার থেকে চলে গেছে,ফিরে এসে ,,আবার যদি ওর জন্য আমাকে ছেরে চলে যায়,,,আমি বাচবো কি করে,,,,নাহ্ কিছু একটা করতে হবে,,,,)
,
,,,,,,,,,,,
সকালে শুভ ঘুম থেকে উঠে তিশাকে রুমে দেখতে পায় না,,,,শুভ চুপচাপ উঠে ফ্রেস হয়ে কলেজে যাবার জন্য রেডি হয়ে নেয়,,,,, বাহিরে এসে নাস্তা করার সময় আর চোখে চারিদিক দেখছে কিন্তুু তিশাকে দেখতে পাচ্ছে না,,,,
,
শুভ:::::( আশ্চর্য ব্যাপার,,,, গেলো কই,,,,দেখতেই পাচ্ছি না,,,কাল তো আমাকে জ্বালিয়ে মারছিলো,,,আর আজ তো)
,
শুভর মা:::: কি রে রাতে বউমা খেয়েছিলো তো? কাল সারাদিন তোর জন্য বসে ছিলো,,,তুই আসিস নি জন্য ও খায়নি,,,,,,এখন খেতে বললাম তাও খেলোনা,,,না খেয়ে থাকলে নাকি ওর মাথায় পেইন হয় আর মাথা ঘুরে যায়,,,, তাই বলছি রাতে খেয়েছে তো???
,
শুভ:::’: না,মানে,,,,,
,
শুভর মা::::: তুই আজ থেকে তিশাকে সাথে নিয়ে যাস,,,,, নতুন তো,,,,,কিছু চেনে না,,,একা যেতে পারবে না,,,,
,
শুভ:::: আমি নিয়ে যেতে পারবো না,,,, তুমি বলো রিক্সা করে যেতে,,,,,
,
শুভর মা:::: রিক্সা করে যাবে মানে,,,,তোর বউ ও,,,,তোর একটা কর্তব্য আছে,,,,
,
শুভ::::: প্লিজ মা,,,যে বিয়েটা আমি মানি না,,,সেই বিয়ের দায় আমাকে নিতে বলো না,,,,,,
,
শুভর মা:::: তোর বাবা যদি একথা জানতে পারে কি হবে জানিস? মেয়েটার মা,বাবা নেই,,,,, ওতো বড় ঘরের মেয়ে শুধু ভালোবাসার জন্য আমাদের ঘরে এসেছে,,,আর সেটা যদি না দিতে পারি তাহলে আমাদের মুখ থাকবে? শোন বাবা,,,বিয়ে টা তো মানুষের একবারই হয়,,,, তিশা খুব ভালো মেয়ে,,, ওকে একবার মনে জায়গা দিয়ে দেখ,,,,ঠকবি না,,,,,বিয়ে টা মেনে নে বাবা,,,,
,
শুভ:::: আমার দেরি হয়ে যাচ্ছে,,,,
,
শুভ উঠে বেরিয়ে যায়,,,,শুভ বাইক স্টার্ট দিতেই তিশা এসে শুভর বাইক এর সামনে দাড়ায়,,,,,
,
শুভ::::: এই মেয়ে কি হতো এক্ষনি?
,
বলেই চুপ হয়ে যায়,,,,টিপ চোখ বন্ধ করে দাড়িয়ে আছে,,মনে হয় ভয় পেয়ে,,,শুভ তো তিশাকে দেখে হা হয়ে যায়,,,তিশা পা পর্যন্ত একটা হলুদরং এর গ্রাউন পরে আছে,,,চুল গুলো হালকা পপ করে ফুলিয়ে এক সাইডে এনে রেখেছে,,,,চোখে গাড় করে কাজল আর হালকা লিপস্টিক দিয়ে খুব সুন্দর করে সেজেছে,,,,,,,
,
তিশা চোখ খুলে দেখে শুভ ওর দিকে তাকিয়ে আছে,,, তিশা তারাতারি শুভর পিছে উঠে বসে,,,,
,
তিশা;::: আপনার তো সাহস কম না আমায় রেখে চলে যাচ্ছেন,,,,,
,
শুভ”:::: তুমি,,,,,,আপনি এখানে কেনো? যান রিক্সা নিয়ে কলেজে যান,,,,
,
তিশা:::: বর থাকতে রিক্সা কেনো,,,,,
,
শুভ:::::: আপনি,,,,,
,
তিশা::::: হ্যা চলুন,,,আর হ্যা কলেজে পৌছানোর একটু আগে আমায় নামিয়ে দিবেন,,,,,,কেউ যেনো না যানে আমি আপনার বউ,,,,,,,
,
শুভ::::: হুহ্ বয়েই গেছে আপনাকে আমার বউ বলার,,,,,
,
তিশা:::::( দেখাই যাবে,,,,,চ্যালেন্জ মি,শুভ আপনি নিজেই সবার সামনে আমাকে নিজের ‘বউ’ বলে স্বীকার করবেন,,,,, সবে তো শুরু,,,,)
,
কলেজের একটু আগে এসে শুভ তিশাকে নামিয়ে দেয়,,,,
,
তিশা::::: আরে যাচ্ছেন কই,,,,
,
শুভ::::: কি করবো?
,
তিশা:::: আমি এইটুকু যাবো কি করে?
,
শুভ::::: রিক্সা নিয়ে,,,,,
,
তিশা:”’ তো ঠিক করে দিন,,,,,আর আমাকে কিছু টাকা দিন,,,,
,
শুভ::::::: এক বড় বাড়ির মেয়ে আমার কাছে টাকা চাচ্ছেন,,,
,
তিশা:::: বর আপনি আমার,,,আমার সব চাহিদা পূরণের কর্তব্য আপনার,,,, আমি আমার বাপের বাড়ি টাকা চেয়ে আমার বর এর সম্মান নষ্ট হতে দিতে পারবো না,,,,আর আমার এমন কোনো চাহিদা নেই যা আপনি পূরণ করতে ব্যার্থ হবেন,,,,,,মানেন না মানেন আপনি আমার বর,,,,শুধুই আমার,,,,আর আমি আপনার বউ,,,,,,শুধুই আপনার,,,, বউ,,,,,
,
তিশা টাকা না নিয়েই হেটে চলে গেলো,,,,শুভ কিছু বলতে গিয়েও বললো না,,,,শুভ শুধু অবাকই হচ্ছে,,,কারন এ রকম মেয়ে শুভ তার জীবনে একটাও দেখেনি,,,,আর এতো অপমান করার পরেও মেয়েটা চুপ করে আছে কেনো শুভ সেটাই বুঝতে পারছে না,,,,, শুভ ভাবতে ভাবতেই কলেজে চলে গেলো,,,,,,,
,
কলেজে গিয়েই শুভর চোখ চড়কগাছ,,,, সবাই তিশার দিকে তাকিয়ে আছে,,,যেনো তিশা কোনো এলিয়েন,,,,,,
,
শুভ চুপচাপ ক্যাম্পাস দিয়ে হেটে যাচ্ছে আর আরচোখে তিশাকে দেখছে,,,,
,
শুভ:::::বাহ্ প্রথমদিনেই সবাইকে নাচিয়ে নিচ্ছে,,,,, সব ছেলে গুলা যেভাবে তাকিয়ে আছে মনে হচ্ছে ওদের জি এফ,,,,,এতো সেজে কলেজে আসার কি দরকার শুনি,,,,, ও যাই করুক আমার কি,,,,,হুহ্,,,,,,,,,
যত্তসব,,,,
,
,হঠাৎই তিশা একটা ছেলের সাথে হ্যান্ডসেক করে,,,এটা দেখে শুভ দাড়িয়ে যায়,,,,,,,,,
,
♥♥♥♥be continue ♥♥♥♥

পোষ্টটি আপনার বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন !
Share on Facebook
Facebook
0Pin on Pinterest
Pinterest
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin

Leave a Reply